এসো বই পড়ি, আলোকিত জিবন গড়ি

সর্বশেষ

এক কথায় প্রকাশ (বাংলা ২য় পত্র)

এক কথায় প্রকাশ

(বাংলা ২য় পত্র)




😇 অকালে পক্ব হয়েছে যা—অকালপক্ব।
😇 অক্ষির অগোচরে—পরোক্ষ।
😇 অক্ষির সম্মুখে—প্রত্যক্ষ।
😇 অগ্রে গমন করে যে—অগ্রগামী।
😇 অতি দীর্ঘ নয়—নাতিদীর্ঘ।
😇 অতি শীতলও নয় অতি উষ্ণও নয়—নাতিশীতোষ্ণ।
😇 অগ্রে জন্মগ্রহণ করেছে যে—অগ্রজ।
😇 অনেক কষ্টে ভিক্ষা পাওয়া যায় যখন—দুর্ভিক্ষ।
😇 অনেকের মধ্যে একজন—অন্যতম।
😇 অনুসন্ধান করার ইচ্ছা— অনুসন্ধিৎসা।

👉 পশ্চাতে গমন করে যে—অনুগামী।
👉 অবশ্যই যা ঘটবে—অবশ্যম্ভাবী।
👉 অভিজ্ঞতার অভাব যার— অনভিজ্ঞ।
👉 অহংকার করে যে—অহংকারী।
👉 অহংকার নেই এমন—নিরহংকার।
👉 অল্প ব্যয় করে যে—মিতব্যয়ী।
👉 আকাশ পথে যে যান ব্যবহার করা যায়—নভোযান।
👉 আচারে নিষ্ঠা আছে যার— আচারনিষ্ঠ।
👉 আদি থেকে অন্ত পর্যন্ত—আদ্যন্ত।
👉 আপনার বর্ণ লুকায় যে— বর্ণচোরা।

😇 আমিষের অভাব—নিরামিষ।
😇 আল্লাহর অস্তিত্বে বিশ্বাস আছে যার— আস্তিক।
😇 আল্লাহর অস্তিত্বে বিশ্বাস নেই যার— নাস্তিক।
😇 আকাশে ওড়ে যে—খেচর।
😇 ইতিহাস জানেন যিনি— ইতিহাসবেত্তা।
😇 ইন্দ্রিয়কে জয় করেছে যে—জিতেন্দ্রিয়।
😇 ক্ষণকালের জন্য স্থায়ী—ক্ষণস্থায়ী।
😇 উপায় নেই যার—নিরুপায়।
😇 উপকার করেন যিনি—উপকারক।
😇 উপকারীর উপকার স্বীকার করা— কৃতজ্ঞতা

👉 কল্পনা করা যায় না এমন— অকল্পনীয়।
👉 খাওয়ার ইচ্ছা—ক্ষুধা।
👉 গরুর ডাক—হাম্বা।
👉 চোখে যার লজ্জা নেই— চশমখোর।
👉 জন্ম থেকে আরম্ভ করে—আজন্ম।
👉 জানা আছে যা—জ্ঞাত।
👉 জানা নেই যা—অজ্ঞাত।
👉 জলে ও স্থলে চরে যে—উভচর।
👉 জায়া ও পতি—দম্পতি।
👉 জীবন পর্যন্ত—আজীবন।

😇 একই গুরুর শিষ্য—সতীর্থ।
😇 একই বিষয়ে যার চিত্ত নিবিষ্ট— একাগ্রচিত্ত।
😇 একই সময়ে—যুগপৎ।
😇 একই সময়ে বর্তমান— সমসাময়িক।
😇 একই মাতার উদরে জন্ম যাদের— সহোদর।
😇 কোনো ভাবেই যা নিবারণ করা যায় না—অনিবার্য।
😇 কণ্ঠ পর্যন্ত—আকণ্ঠ।
😇 কম কথা বলে যে—মিতভাষী।
😇 যার কোনো কিছুতে ভয় নেই—অকুতোভয়।
😇 যার অন্য উপায় নেই—অনন্যোপায়।
😇 যার কাজ করার শক্তি আছে—সক্ষম।

👉 যার আকার নেই—নিরাকার।
👉 যার পীড়া হয়েছে—পীড়িত।
👉 যার উপস্থিত বুদ্ধি আছে—প্রত্যুৎপন্নমতি।
👉 যিনি অধিক ব্যয় করেন না—মিতব্যয়ী।
👉 যিনি শিক্ষা দান করেন—শিক্ষক।
👉 যিনি বিশেষ জ্ঞান রাখেন—বিশেষজ্ঞ।
👉 শুভক্ষণে জন্ম যার—ক্ষণজন্মা।
👉 শত্রুকে দমন করে যে—অরিন্দম।
👉 শৈশবকাল অবধি—আশৈশব।
👉 শুকনো পাতার শব্দ—মর্মর।

😇 সকলের জন্য প্রযোজ্য—সর্বজনীন।
😇 সমুদ্র পর্যন্ত—আসমুদ্র।
😇 সমস্ত পৃথিবীর লোকের বন্দনাযোগ্য —বিশ্ববন্দিত, বিশ্ববন্দ্য।
😇 সারা দুনিয়ায় খ্যাত—জগদ্বিখ্যাত।
😇 সাধনা করেন যিনি—সাধক।
😇 সিংহের ডাক—হুংকার।
😇 সোনার মতো দেখতে—সোনালি।
😇 হনন করার ইচ্ছা—জিঘাংসা।
😇 হরিণের চামড়া—অজিন।
😇 হিত কামনা করে যে—হিতৈষী।

👉 হঠাৎ রাগ করে যে—রগচটা।
👉 হাতির ডাক—বৃংহণ/বৃংহিত।
👉 কষ্টে গমন করা যায় যেখানে—দুর্গম।
👉 কোথাও উঁচু কোথাও নিচু—বন্ধুর।
👉 কী করতে হবে তা বুঝতে না পারা কিংকর্তব্যবিমূঢ়
👉 কূলের সমীপে—উপকূল।
👉 কর্ম সম্পাদনে পরিশ্রমী—কর্মঠ।
👉 কল্পনা করা যায় না এমন—অকল্পনীয়।
👉 কোকিলের স্বর—কুহু।
👉 খাবার যোগ্য—খাদ্য।

😇 খ্যাতি আছে যার—খ্যাতিমান।
😇 ঘোড়ার ডাক—হ্রেষা।
😇 চিরদিন মনে রাখার যোগ্য—চিরস্মরণীয়।
😇 জানার ইচ্ছা—জিজ্ঞাসা।
😇 জয়ের জন্য যে উৎসব—জয়োৎসব।
😇 ডালের আগা—মগডাল।
😇 তুলনা হয় না এমন—অতুলনীয়।
😇 তিন রাস্তার মোড়—তেমাথা।
😇 তাল ঠিক নেই যার—বেতাল।
😇 ত্রি (তিন) ফলের সমাহার—ত্রিফলা।

👉 দমন করা যায় না এমন—অদম্য।
👉 দিনের মধ্যভাগ—মধ্যাহ্ন।
👉 দিনে যে একবার আহার করে—একাহারী।
👉 দিবসের প্রথম ভাগ—পূর্বাহ্ন।
👉 দিবসের শেষ ভাগ—অপরাহ্ন।
👉 দূরে দেখে না যে—অদূরদর্শী।
👉 নষ্ট হয় যা—নশ্বর।
👉 নিশাকালে চরে বেড়ায় যে—নিশাচর।
👉 নদীমাতা যার—নদীমাতৃক।
👉 নূপুরের শব্দ—নিক্বণ।

😇 নতুন কিছু তৈরি করা—উদ্ভাবন।
😇 নিজের অধিকার—স্বাধিকার।
😇 নষ্ট হয়ে যাওয়া জিনিসের গাদা—আবর্জনা।
😇 নিজের ইচ্ছায়—স্বেচ্ছায়।
😇 পরের অধীন—পরাধীন।
😇 পা থেকে মাথা পর্যন্ত—আপাদমস্তক।
😇 পান করার ইচ্ছা—পিপাসা।
😇 প্রতিভা আছে যার—প্রতিভাবান।
😇 পরিহার করা যায় না এমন—অপরিহার্য।
😇 পান করার যোগ্য—পেয়।

👉 প্রহরা দেয় যে—প্রহরী।
👉 পাখির কলরব—কূজন।
👉 পান করার ইচ্ছা—পিপাসা।
👉 পা হতে মাথা পর্যন্ত—আপাদমস্তক।
👉 পেছনে সরে যাওয়া—পশ্চাদপসরণ।
👉 প্রাণ আছে যার—প্রাণী।
👉 ফল পাকলে যে গাছ মরে যায়—ওষধি।
👉 বাঘের ডাক—গর্জন।
👉 বয়সে সবচেয়ে ছোট—কনিষ্ঠ।
👉 বয়সে সবচেয়ে বড়—জ্যেষ্ঠ।

😇 বেশি কথা বলে যে—বাচাল।
😇 বরণ করার যোগ্য—বরণীয়।
😇 বিচার নেই এমন—অবিচার্য।
😇 ব্যাকরণ জানেন যিনি—বৈয়াকরণ।
😇 বীরদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ—বীরশ্রেষ্ঠ।
😇 বেঁচে আছে এমন—জীবিত।
😇 বিনা পয়সায়—মুফত/মাগনা।
😇 বিভিন্ন জাতি সম্পর্কীয়—বহুজাতিক।
😇 বড় গ্রহকে ঘিরে যে ছোট গ্রহ ঘোরে—উপগ্রহ।
😇 ভয় নেই যার—নির্ভীক।

👉 ভিক্ষার অভাব—দুর্ভিক্ষ।
👉 ভাষা সম্পর্কে যিনি বিশেষ জ্ঞান রাখেন — ভাষাবিদ।
👉 ভোজন করতে ইচ্ছুক—বুভুক্ষু।
👉 ভাবা যায় না এমন—অভাবনীয়।
👉 ভ্রমরের গান—গুঞ্জন।
👉 মধুর ধ্বনি—মধুরা।
👉 মরণ পর্যন্ত—আমরণ।
👉 মৃতের মতো অবস্থা—মুমূর্ষু।
👉 মেধা আছে যার—মেধাবী।
👉 ময়ূরের ডাক—কেকা।

😇 মায়ের মতো যে ভূমি—মাতৃভূমি।
😇 মিষ্টি কথা বলে যে—মিষ্টভাষী।
😇 যে গাছ অন্য গাছের ওপর জন্মে— পরগাছা।
😇 যে নারীর পুত্রসন্তান হয়নি—অপুত্রক।
😇 যে পরিণাম বোঝে না— অপরিণামদর্শী।
😇 যে গাছে ফল ধরে, কিন্তু ফুল ধরে না—বনস্পতি।
😇 যে জামাই শ্বশুরবাড়ি থাকে— ঘরজামাই।
😇 যে মেয়ের বিয়ে হয়নি—অনূঢ়া।
😇 যে পরে জন্মগ্রহণ করেছে—অনুজ।
😇 যে জমিতে দুবার ফসল হয়—দো-ফসলা।

👉 যে সংবাদ বহন করে—সাংবাদিক।
👉 যে অত্যাচার করে—অত্যাচারী।
👉 যে শব্দ বাধা পেয়ে ফিরে আসে— প্রতিধ্বনি।
👉 যে অন্যের অধীন নয়—স্বাধীন।
👉 যে নৌকা চালায়—মাঝি।
👉 যেখানে লোকজন বাস করে— লোকালয়।
👉 যে উপকারীর উপকার স্বীকার করে —কৃতজ্ঞ।
👉 যে হিংসা করে—হিংসক।
👉 যে উপকারীর অপকার করে—কৃতঘ্ন।
👉 যে বিদেশে থাকে—প্রবাসী।

😇 যে আকাশে চরে—খেচর।
😇 যা মর্ম স্পর্শ করে—মর্মস্পর্শী।
😇 যা সহজে লাভ করা যায়—সুলভ।
😇 যা সহজে লাভ করা যায়—সুলভ।
😇 যা সহজে ভেঙে যায়—ভঙ্গুর।
😇 যা বালকের মধ্যেই সুলভ—বালসুলভ।
😇 যা লাফিয়ে চলে—প্লবগ।
😇 যা বুকে হাঁটে—সরীসৃপ।
😇 যা বলার যোগ্য নয়—অকথ্য।
😇 যা চুষে খাওয়া যায়—চুষ্য।

👉 যা জলে জন্মে—জলজ।
👉 যা দেখা যাচ্ছে—দৃশ্যমান।
👉 যা পূর্বে ছিল এখন নেই—ভূতপূর্ব।
👉 যা একইভাবে চলে —গতানুগতিক।
👉 যা বাক্যে প্রকাশ করা যায় না— অবর্ণনীয়।
👉 যা কষ্ট করে জয় করা যায়— দুর্জয়।
👉 যা হবেই/হইবে—ভাবী।
👉 যা সহজে দমন করা যায় না— দুর্দমনীয়।
👉 যা মাটি ভেদ করে ওঠে—উদ্ভিদ।
👉 যা ফুরায় না—অফুরান।

😇 যা জলে চরে—জলচর।
😇 যা কষ্টে লাভ করা যায়—দুর্লভ।
😇 যা পূর্বে ঘটেনি—অভূতপূর্ব।
😇 যার তল স্পর্শ করা যায় না— অতলস্পর্শী।
😇 যার বিশেষ খ্যাতি আছে—বিখ্যাত।
😇 যার নাম কেউ জানে না— অজ্ঞাতনামা।
😇 যার পত্নী গত হয়েছে—বিপত্মীক।
😇 যার ভাতের অভাব—হাভাতে।
😇 যার মমতা নেই—নির্মম।
😇 যার তুলনা হয় না—অতুলনীয়।
😇 যার সীমা নেই—অসীম।
😇 যার তুলনা নেই—অতুলনীয়।
😇 যার অন্ত নেই—অন্তহীন।
😇 যার শত্রু জন্মায়নি—অজাতশত্রু।
😇 গরু রাখার স্থান — গোয়াল।
😇 ঢেউয়ের ধ্বনি — কল্লোল।
😇 পুবের বাতাস — পুবালি।
😇 গরু চরায় যে — রাখাল।
😇 গাভির ডাক — হাম্বা।
😇 বিশ্বের যে নবী — বিশ্বনবী।

👉 বিদেশে থাকে যে — প্রবাসী।
👉 পুতুল পূজা করে যে — পৌত্তলিক।
👉 রুপার মতো — রুপালি।
👉 মাটির তৈরি শিল্পকর্ম — মৃৎশিল্প।
👉 আঠা যুক্ত আছে যাতে — আঠালো।
👉 চালচলনের উৎকর্ষ — সভ্যতা।
👉 পুরুষানুক্রমিক — ঐতিহ্য।
👉 চিত্রকর্মের কাঠামো — নকশা।
👉 জীবন পর্যন্ত — আজীবন।
👉 জনশূন্য স্থান — নির্জন।

😇 যে বৃক্ষের ফুল না হলেও ফল হয় — বনস্পতি।
😇 মধু সংগ্রহকারী পতঙ্গবিশেষ — মৌমাছি।
😇 জ্ঞানের সঙ্গে বিদ্যমান — সজ্ঞান।
😇 আপনাকে ভুলে থাকে যে — আপনভোলা।
😇 বিলম্বে নয় এমন — অবিলম্বে।
😇 স্থির নয় এমন — অস্থির।
😇 ফুল হতে জাত — ফুলেল।
😇 আলাপ করতে তৎপর — আলাপী।
😇 আলোচনার বিষয়বস্তু — আলোচ্য।
😇 মুক্তি কামনা করে যে — মুক্তিকামী।

👉 মৃত্তিকা দিয়ে নির্মিত — মৃন্ময়।
👉 স্রোত আছে যার — স্রোতস্বতী।
👉 প্রাচীন ইতিহাস — প্রত্নতাত্ত্বিক।
👉 প্রাণিদেহ থেকে লব্ধ — প্রাণিজ।
👉 রোগনাশক গাছগাছড়া — ভেষজ।
👉 আলো ছড়ায় যে পাখি — আলোর পাখি।
👉 শিক্ষা করছে যে — শিক্ষানবিশ।
👉 বিচিত্রতায় পূর্ণ যা — বৈচিত্র্যপূর্ণ।
👉 খাদ নেই যাতে — নিখাদ।
👉 বনে বাস করে যে — বনবাসী।
👉 যা বনে চরে — বনচর।
👉 আকাশ ও পৃথিবী — ক্রন্দসী।
👉 অন্বেষণ করার ইচ্ছা — অন্বেষা।
👉 উদ্দাম নৃত্য — তাণ্ডব।
👉 যা সহজেই ভেঙে যায় — ঠুনকো।
👉 বিনা অপরাধে সংঘটিত হত্যা — গণহত্যা



Reactions: 

No comments:

Post a Comment